তবে কী মির্জা আব্বাসই হচ্ছেন বিএনপির ‘পরবর্তী মহাসচিব’!

adminadmin
  প্রকাশিত হয়েছেঃ   05 January 2021

নিউজ ডেস্ক: শীতের হিমেল হাওয়ার ছোঁয়ায় রাজনৈতিক অঙ্গন শীতল না হয়ে বরং উত্তপ্ত হয়ে উঠছে। বিশেষ করে মাঠের রাজনীতিতে সম্পূর্ণভাবে ব্যর্থ দল বিএনপিতে চলছে নানা অপতৎপরতা। আগামী জাতীয় কাউন্সিল নিয়ে শোনা যাচ্ছে নানা গুঞ্জন। সর্বশেষ খবর মিলেছে, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে খুশী করে ‘দলের মহাসচিব’ হতে তৎপর দলটির স্থায়ী কমিটির প্রভাবশালী সদস্য মির্জা আব্বাস। এর প্রেক্ষিতে তিনি গুলশান-২ নম্বরে একটি ডুপ্লেক্স বাড়ি কিনেছেন, যেটা দলীয় নেত্রীকে উপহার দেবেন বলে জানা গেছে।

দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানিয়েছে, সাংগঠনিক কর্মতৎপরতাহীন অলস বিএনপির এই দুর্দিনে নিজের স্বার্থকেই বড় করে দেখছেন মির্জা আব্বাস। এ কারণে পরবর্তী জাতীয় কাউন্সিলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে হটিয়ে দলীয় মহাসচিব পদ নিজের দখলে নিতে তিনি মরিয়া হয়ে উঠেছেন। তারই অংশ হিসেবে এই জ্যেষ্ঠ নেতা কোটি টাকা খরচ করে খালেদার জন্য বাড়ি কিনেছেন। উপহারের বিনিময়ে খুশী করে অধিষ্ঠিত হবেন কাঙ্ক্ষিত পদে, এমনটাই উচ্চাকাঙ্ক্ষা তার। তবে ফলাফল কী হয়, সেটাই এখন দেখার বিষয়!

বাড়ি কেনার বিষয়ে সত্যতা যাচাইয়ে বাংলা নিউজ ব্যাংকের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয় মির্জা আব্বাসের ঘনিষ্ঠ সূত্রের সঙ্গে। সূত্রটি এই প্রতিবেদককে জানায়, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া গুলশানের ভাড়া বাড়ি ফিরোজার ভাড়া পরিশোধ করছেন না, এমনকি বাড়িটি দখলেরও পাঁয়তারা করছেন। এমন খবর পেয়ে এই পরিস্থিতিকে মোক্ষম সুযোগ হিসেবে কাজে লাগাতেই মির্জা আব্বাস এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এদিকে মির্জা আব্বাসের পক্ষ থেকে খালেদা জিয়াকে ‘বাড়ি উপহার’ দেয়ার কথা জেনে গেছেন লন্ডনে পলাতক ফেরারি আসামি ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তাকে না দিয়ে খালেদাকে উপহার দেয়ায় তিনি বেশ চটেছেন বলে লন্ডনের কিংস্টনভিত্তিক একটি সূত্র জানিয়েছে।

সূত্রটির তথ্যমতে, খালেদা জিয়ার পেছনে মির্জা আব্বাসের এই বিনিয়োগকে ভালো চোখে দেখছেন না তারেক। কারণ, খালেদার কারান্তরীণ সময়ে দলের দেখভাল তিনিই করেছেন। তাই এই প্রাপ্য তার। এটা ন্যায্য ও যুক্তিগত বলে মনে করছেন তারেক। কিন্তু তা না করে আব্বাস বাড়ি উপহার দিচ্ছেন খালেদাকে। তবে আব্বাসের এই রাজনৈতিক কৌশল কাজে আসবে না বলেও সাফ জানিয়েছেন তারেক।

রাজনৈতিক বিজ্ঞজনদের মতে, লোভী খালেদা যদি মির্জা আব্বাসের পাতা ফাঁদে পা দেয়, তবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বিএনপি। বর্তমানের রুগ্নদশা থেকে কালের গর্ভে বিলীন হয়ে যাবে জিয়াউর রহমানের হাতে গড়া দলটি। কারণ, আব্বাস ব্যক্তি বা রাজনৈতিক কোন দিক দিয়েই সৎ নন। বরং লুটপাট করে খাওয়ার এক জীবন্ত কাণ্ডারি। তাই দল বাঁচানোর স্বার্থে হলেও খালেদাকে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

আপনার মতামত লিখুন :