যে ডাক্তার জেলায় যাবে না, তার দরকার নেই: প্রধানমন্ত্রী


  প্রকাশিত হয়েছেঃ   29 January 2019

সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকদের বেসরকারি হাসপাতালে এসে যেন রোগী দেখতে না হয় সেজন্য সরকারি হাসপাতালগুলোতেই ‘বিশেষ ধরনের সেবা’ চালুর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

যেসব চিকিৎসক জেলা হাসপাতালে রোগী দেখতে চাইবেন না, তাদের ওএসডি করে নতুন নিয়োগ দিতে বলেছেন তিনি। নার্সরা যদি সেবা দিতে না চান, তাহলে তাদেরও চাকরি ছেড়ে দিতে বলেছেন তিনি। পাশাপাশি বেসরকারি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে কী ধরনের পড়াশোনা হচ্ছে, সে বিষয়ে তদারকি বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন সরকারপ্রধান।

রোববার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে এসে মন্ত্রী ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়ে প্রধানমন্ত্রীর এই কঠোর নির্দেশনা আসে।

তিনি বলেন, আমাদের ডাক্তাররা সব সময় প্রাইভেট চিকিৎসা দিতেই পছন্দ করে। পৃথিবীর বহু দেশ আছে, সরকারি চাকরি যতদিন করে, ততদিন কিন্তু প্রাইভেট চাকরি করতে পারে না। এমনকি সিঙ্গাপুরেও যাবেন, এনইউএইচের ডাক্তাররা প্রাইভেট চিকিৎসা করতে গেলে ওই হাসপাতালের মধ্যেই আলাদা ব্যবস্থা আছে।

বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বহির্বিভাগে এ ধরনের একটি ব্যবস্থা চালু থাকার কথা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, এটা কিন্তু আমরা অন্যান্য জেলা হাসপাতালেও করে দিতে পারি, যেন তাদের বাইরে না যেতে হয়। সন্ধ্যার পর বা ছুটির সময় ওখানেই একটা প্রাইভেট প্র্যাকটিসের ব্যবস্থা বা আলাদা একটা উইং করে দেয়া যেতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, হাসপাতালে রোগী দেখার পর প্রাইভেট হাসপাতালে গিয়ে কেউ রাত ১২টা, ১টা, ২টা পর্যন্তও নাকি অপারেশন করে। যে ডাক্তার রাতভর অপারেশন করবে, সে আবার সকাল ৮টার সময় এসে রোগী দেখবে কী করে? তার মেজাজ তো এমনিই খিটখিটে থাকবে। এটা যেন না হয় সেদিকে একটু দৃষ্টি দেয়া দরকার।

অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মতো স্বাস্থ্যসেবা সংশ্লিষ্টদের বেতন-ভাতা ও সুযোগ-সুবিধা বাড়ানের কথা মনে করিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, চিকিৎসকদের সুবিধার জন্য উপজেলা পর্যায়ে ফ্ল্যাট নির্মাণ করে দেয়া হচ্ছে।

মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের উদ্দেশে সরকারপ্রধান বলেন, সবার আগে প্রত্যেকটা জেলায় সার্ভে করে দেখবেন। এটা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে করতে হবে। হাসপাতালগুলোতে কত রোগী যাচ্ছে, ডাক্তাররা সেখানে থাকছে না কেন? ডাক্তারদের সেখানে বদলি করা হবে। তারা যদি কাজ না করে, সবগুলোকে ওএসডি করে রেখে দিতে হবে। তাদের দরকার নেই। নতুন ডাক্তার দিতে হবে।

নার্সদের ব্যাপারে শেখ হাসিনা বলেন, আমি তাদের সম্মান দিয়েছি ঠিক। কিন্তু রোগীর সেবাটা তাদের করতে হবে, এটা বাধ্যতামূলক। না করলে সে চাকরিতে থাকবে না, চলে যাবে। অনেক প্রাইভেট জায়গা আছে। কাজের অসুবিধা নেই। লোকেরও অসুবিধা নেই। আমরা ট্রেইনিং করিয়ে নিয়ে আসব।

সারা দেশে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করার পাশাপাশি ডাক্তার তৈরি করা এবং তাদের উচ্চশিক্ষার প্রয়োজনে প্রতিটি বিভাগে মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় করে দেয়ার কথাও তিনি বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, মেডিকেল কলেজগুলো তৈরি হচ্ছে। অনেকগুলো সরকারি আছে, বেসরকারি আছে। বেসরকারিগুলোর দিকে আমাদের আরও নজর বাড়াতে হবে এবং চিকিৎসাসেবাটাও যাতে মানসম্মত হয় সে ব্যবস্থাটা করতে হবে।

তিনি বলেন, ডাক্তারের সংখ্যা আমাদের অপর্যাপ্ত, কারণ আমাদের জনসংখ্যা যত বেশি, তার তুলনায় ডাক্তার কম। সেজন্য ইতিমধ্যে মেডিকেল কলেজ করা হচ্ছে। সে ডাক্তাররা যেন সঠিকভাবে শিক্ষা নিয়ে হয়, বিশেষ করে বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলোর দিকে দৃষ্টি দেয়া প্রয়োজন বলে আমি মনে করি।

আবার দেশের প্রত্যেক জেলায় মেডিকেল কলেজের প্রয়োজন আছে কিনা- সে প্রশ্নও রাখেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, আসলে মেডিকেল কলেজ এত বেশি হয়ে যাচ্ছে, আর আমরা বাঙালি হুজুগে মাতি। যে জায়গায় যাই, সেখানেই একটা মেডিকেল কলেজ দরকার। আমাদের কোনো কোনো জেলায় চারটা উপজেলা। সেখানে একটা মেডিকেল কলেজ করে চলবে কিনা সেটাও একটা প্রশ্ন আছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, যতগুলো মেডিকেল কলেজ, সেটার একটা সার্ভে করা উচিত মন্ত্রণালয়ের যে, প্রত্যেকটা মেডিকেল কলেজ কী অবস্থায় আছে, কতজন শিক্ষার্থী আছে, কতজন শিক্ষক আছে, শিক্ষার কী কী সুযোগ সৃষ্টি আছে। সেটা আগে দেখা দরকার।

বরং বড় যেসব জেলায় মেডিকেল কলেজ ছিল না, সেখানে করার কথা ভাবতে বলেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ডাক্তারদের ইন্টার্নি সিস্টেম দুই বছরের করে দিয়েছিলাম। সেটা কার্যকর হয়েছে কিনা জানি না, সেটা জানতে চাইব। এক বছর সে তার প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নি করে যাচ্ছে, আরেক বছর তাকে করতে হবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। উপজেলায় থেকে যেন চিকিৎসাসেবা দিতে পারে সে ব্যবস্থাও করে দেয়া হয়েছিল। জানি না সেটা কার্যকর আছে কী? সেটা করতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের এখানে ডাক্তার থাকে না, নার্স থাকে না- এটা অনবরত একটা নালিশ। এ ক্ষেত্রে আমি বলব, এখন ডিজিটাল সিস্টেম। আইডি কার্ডও করা আছে। বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে উপস্থিতি-অনুপস্থিতির হিসাবটা নেয়া যায়। প্রত্যেকটা সরকারি হাসপাতালে মনে হয় এই ব্যবস্থাটা করে দেয়া উচিত। রোগীর পুরো বৃত্তান্ত একসঙ্গে পাওয়ার জন্য হেলথ কার্ডও ডিজিটাল হওয়া উচিত বলে মত দেন সরকারপ্রধান।

তিনি বলেন, ডাক্তারদের নিরাপত্তার জন্য প্রতিটি হাসপাতালে সিসি ক্যামেরা থাকা উচিত। মুমূর্ষু রোগী মারা গেলে ডাক্তারের ওপর চড়াও হওয়া- এই ধরনের মানসিকতা জনগণের পরিহার করা উচিত।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি জানি, অনেক বেসরকারি নামিদামি হাসপাতাল আছে মুমূর্ষু রোগী নেয় না, যেতে হয় সরকারি হাসপাতালে। ডাক্তার নার্সদের বলব, যখনই একটা রোগী আছে, তার গুরুত্বটা বুঝে বা আত্মীয়স্বজনের মানসিক উদ্বেগটা বুঝে সঙ্গে সঙ্গে যেন তারা চিকিৎসার ব্যবস্থা নেয়। ফেলে না রাখে। সেবামূলক একটা চিকিৎসার মানসিকতা… এটা যেন চিকিৎসকদের মধ্যে থাকে।

মেডিকেল বর্জ্য ব্যবস্থাপনার বিষয়টিও শৃঙ্খলার মধ্যে আনার তাগিদ দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, অনেক নামিদামি হাসপাতালেও বর্জ্য ব্যবস্থাপনার স্বাস্থ্যকর কোনো ব্যবস্থা চালু হয়নি। এটা (বর্জ্য) নাকি সিটি কর্পোরেশনকে দিয়ে দেয়। সিটি কর্পোরেশন এটা নিয়ে কি করল তার কোনো হদিস পাওয়া যায় না। এটা হল একটা বাস্তব অবস্থা। সে কারণে আমি মনে করি, এটার একটা বিশেষ পদক্ষেপ নেয়া দরকার। বাইরে এভাবে ফেলতে পারে না তো… সিস্টেমটা তৈরি করতে হবে।

কোনো হাসপাতালে কত শয্যা দরকার তা বুঝতে জরিপ করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। পাশাপাশি অ্যানেস্থেসিয়া বিশেষজ্ঞের অভাব মেটাতে প্রয়োজনে প্রণোদনার ব্যবস্থা করা যায় কিনা- তা ভেবে দেখতে বলেন প্রধানমন্ত্রী।

দেশে ডিজিটাইজেশনের প্রভাবে জনগণের ডিজিটাল ডিভাইসের প্রতি আসক্তি বেড়ে যাওয়ায় স্বাস্থ্য সচেতনতা কমে যাচ্ছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি।

যারা দিনের নির্দিষ্ট সময় কাজে ব্যস্ত থাকেন তারা যেন কাজের পর যথাযথ বিশ্রাম নেন এবং সঠিক খাদ্যাভ্যাস বজায় রাখেন সেজন্য প্রচারণা চালাতেও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেন তিনি। তিনি বলেন, রোগ সারানোর দিকে দৃষ্টি দেয়ার চেয়ে রোগ যাতে না হয় সেদিকে দৃষ্টি দেয়া প্রয়োজন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. জাহিদ মালিক এবং প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

নবনিযুক্ত নৌবাহিনী প্রধানকে র‌্যাংক ব্যাজ পরানো হয়েছে : বাসস জানায়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে রোববার সকালে গণভবনে নৌবাহিনীর প্রধান এএমএমএম আওরঙ্গজেব চৌধুরীকে ভাইস অ্যাডমিরালের র‌্যাংক ব্যাজ পরিয়ে দেয়া হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ এবং বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল মসিউজ্জামান সেরনিয়াবাত নৌবাহিনী প্রধানকে ভাইস অ্যাডমিরাল র‌্যাংক ব্যাজ পরিয়ে দেন। তিনি বলেন, অনুষ্ঠান শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নবনিযুক্ত নৌবাহিনী প্রধানকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান এবং তার সাফল্য কামনা করেন।

নৌবাহিনী প্রধানও ফুলের তোড়া দিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব.) তারিক আহমেদ সিদ্দিক, মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান, প্রতিরক্ষা সচিব আখতার হোসেন ভূঁইয়া এবং প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব মেজর জেনারেল মিঞা মোহাম্মদ জয়নুল আবেদিন উপস্থিত ছিলেন।

জাতীয়

আপনার মতামত লিখুন :