খালেদা জিয়ার ‘মাদার অব ডেমোক্রেসি’ পুরস্কার নাকি ফটোশপের কারসাজী

adminadmin
  প্রকাশিত হয়েছেঃ   09 February 2022

মির্জা ফখরুল সংবাদ সম্মেলন করে জানালেন, খালেদা জিয়া ‘দি কানাডিয়ান হিউম্যান রাইটস ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন’ – সিএইচআরআইও এর পক্ষ থেকে ‘ডেমোক্রেসি হিরো’ অথবা ‘মাদারে গণতন্ত্র’ অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন। লক্ষ্য করে দেখলাম একই সংগঠন থেকে দুটি এওয়ার্ড দেয়া হয়েছে – ডেমোক্রেসি হিরো ও মাদার অব ডেমোক্রেসি এওয়ার্ড। 

মজার ব্যাপার হচ্ছে, খালেদা জিয়া ক্ষুদ্র একটি সংগঠনের এতবড় দুটি এওয়ার্ড পেয়েছেন, তা বিএনপি নেতারা টের পেলেন ৩/৪ বছর পর!

ফখরুলের উপস্থাপিত এওয়ার্ডের একটিতে তারিখ উল্লেখ রয়েছে ৩১শে জানুয়ারি ২০১৯, আরেকটিতে ৩১ জুলাই ২০১৮। আরও কিছু কপি পেলাম যেখানে তারিখ দেয়া হয়েছে ৩১ জুলাই ২০১৯ এবং ২৯ মে ২০১৯। দেখে মনে হয় খালেদা জিয়ার কয়েকটি জন্মদিন থাকার কারণে এওয়ার্ডও কয়েক কিস্তিতে দেয়া হয়েছে।

Chrio/cohuridela নিজেরাই এওয়ার্ড পাওয়ার জন্য প্রাণপণ চেষ্টা করে। তাদের ওয়েবসাইটে গেলেই তার প্রমাণ পাবেন।  

http://chrio.ca/awards

http://chrio.ca/…/nota-de-prensa-2020-awards-chrio…

এওয়ার্ডে উল্লেখ করা দুটি ওয়েবসাইটের একটির অস্তিত্বই নেই (cohuridela.com)

মূল সাইট http://chrio.ca এ খালেদাকে এওয়ার্ড দিয়েছে এমন কিছু উল্লেখ করা হয় নি। 

কানাডিয়ান ১ লক্ষ ৬০ হাজার ডলার আর্থিক লেনদেনের এই চুক্তি সম্পাদন প্রক্রিয়ায় কানাডিয়ান হিউম্যান রাইটস ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশনের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর অফ মিশন ইন এশিয়া মোঃ মোমিনুল হক (বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খানের ভাগ্নে), 

পাবলিক রিলেশন ডিরেক্টর আর্সেলি ডিনাইস গ্র্যাঞ্জা এবং বাংলাদেশী রাজনৈতিক দল বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ূন কবিরের সরাসরি জড়িত থাকার প্রমাণ মিলেছে

“কোটি টাকায় এবার কানাডা থেকে পুরস্কার কিনছেন বেগম জিয়া! বিপাকে পুরস্কারদাতারা।” – এই শিরনামে প্রকাশ হয় সংবাদটি। 

চলুন আরো কিছু যানি একটু লক্ষ্য করি এই এওয়ার্ডের ঠিকানার দিকে দেখুন এর ঠিকানায়ও আছে গড়মিল ছবিতে আছে 1727 Finch কিন্তু মুল অয়েব সাইটে ঠিকানা 1725 Finch. বাহ অদ্ভুত না এই সব। 

আসলে এই সবই ফটোশপের কাজ। আজকাল টাকা দিলে রাজধানী ঢাকার নিউমার্কেট থেকে এমন হাজারো এওয়ার্ড বানানো যায়।

যখন দেশের বিরুদ্ধ্যে হাজারো ষড়যন্ত্র করে লবিষ্ট নিয়োগ করেও দেশের কোনো ক্ষতি করতে পারে নি তখন বিএনপি এই মিথ্যা বানোয়াট পথ বেঁচে নিল। 

বিএনপি বরাবরের মত আবারো প্রমান করলো তারা মিথ্যাচার করা ছাড়া আর কিছুই পারে না। 

জাতীয়

আপনার মতামত লিখুন :