logo
বুধবার , ২৮ ডিসেম্বর ২০২২ | ১৭ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অন্যান্য
  2. অর্থনীতি
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ক্যারিয়ার ভাবনা
  5. খেলা
  6. জাতীয়
  7. টেক নিউজ
  8. দেশের খবর
  9. প্রবাস
  10. ফিচার
  11. বিনোদন
  12. রাজনীতি
  13. লাইফস্টাইল
  14. সম্পাদকীয়
  15. সাফল্য

দ্বিতীয়বারের মতো মেয়র হলেন জাপার মোস্তফা

প্রতিবেদক
admin
ডিসেম্বর ২৮, ২০২২ ৯:২৩ পূর্বাহ্ণ

নারায়ণগঞ্জ ও কুমিল্লার পর এই বছর আরো একটি ভালো নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলো রংপুরে। গতকাল মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ভোটগ্রহণে কোনো সংঘাত বা অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ এই নির্বাচনে জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা টানা দ্বিতীয়বারের মতো বেসরকারিভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন।

গতকাল রাতে রংপুর বিভাগীয় শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে রিটার্নিং অফিসার আবদুল বাতেন বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, ২২৯টি কেন্দ্রের বেসরকারি ফলাফলে জাপার প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা লাঙল প্রতীক নিয়ে এক লাখ ৪৬ হাজার ৭৯৮ ভোট পেয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আমিরুজ্জামান পিয়াল হাতপাখা প্রতীকে পেয়েছেন ৪৯ হাজার ৮৯২ ভোট। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী লতিফুর রহমান মিলন হাতি প্রতীকে ৩৩ হাজার ৮৮৩ ভোট এবং আওয়ামী লীগের প্রার্থী অ্যাডভোকেট হোসনে আরা লুত্ফা ডালিয়া নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ২২ হাজার ৩০৬ ভোট। ভোট প্রদানের হার ৬৫.৯১ শতাংশ।

নির্বাচনে বিজয়ের মাধ্যমে রংপুরে জাতীয় পার্টি তাদের দুর্গ আরো সুসংহত করল বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা। নির্বাচন কমিশনও ভালো ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বছর শেষ করল। আগামী বছরের শেষের দিকে এই কমিশনের অধীনে শুরু হবে জাতীয় নির্বাচনের ডামাডোল।

এর আগে ১৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ ও ১৫ জুন কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ও সুষ্ঠু হয়েছিল। সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) রংপুর বিভাগীয় সমন্বয়ক রাজেশ দে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ভোট সুষ্ঠু হয়েছে। এটা ইতিবাচক। নিজের ভোট নিজে দিতে পেরে জনগণও খুশি। ’

সাধারণ ভোটাররা বলছেন, জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান তাঁর আগের মেয়াদে বিশেষভাবে উল্লেখ করার মতো কোনো কাজ করেননি। স্বাভাবিক যে উন্নয়নমূলক কাজ ছিল, তা-ই করেছেন। এ অঞ্চল জাতীয় পার্টির ঘাঁটি। সে ভোটকে পুঁজি করে তিনি জয় পেলেন।

নির্বাচনে গোলযোগ না হলেও ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ভোটগ্রহণে ধীরগতির অভিযোগ ছিল। বয়স্কদের আঙুলের ছাপ না মেলায় দিনের শেষভাগে দীর্ঘ লাইনের কারণে কোথাও কোথাও হট্টগোল করেন ভোটাররা। প্রথমবার ইভিএমে ভোট দিতে পেরে অনেকে আবার উচ্ছ্বসিত ছিলেন।

সকালের দিকে ভোটার উপস্থিতি কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে উপস্থিতি বাড়তে থাকে। পড়ন্ত বিকেলে কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের দীর্ঘ লাইন দেখা যায়। যার কারণে নির্ধারিত সময় শেষ হওয়ার পরও অন্তত ৭০ কেন্দ্রে ভোট নিতে হয়েছে। কোনো কোনো কেন্দ্রে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইসি কর্মকর্তারা জানান।

kalerkantho

নির্বাচনে পুলিশ, র‌্যাবসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী কড়া পাহরায় ছিল। আনসার সদস্যরা কেন্দ্রে ভেতরে-গেটে ভোটারদের সহযোগিতা করেছেন।

সকালে লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে ভোট দিতে গিয়ে বিড়ম্বনার শিকার হন অভিযোগ করে জাপা প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান বলেন, ‘আঙুলের ছাপ না মেলায় প্রথম দফায় ভোট দিতে পারিনি। দ্বিতীয় দফায় দিয়েছি। এ কারণে ভোটগ্রহণ ধীরগতিতে হচ্ছে। ’ এর জবাবে রিটার্নিং অফিসার আবদুল বাতেন সকাল সাড়ে ১০টায় একই কেন্দ্রের সামনে সাংবাদিকদের বলেন, ইভিএম ও নির্বাচনকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করছেন জাপা প্রার্থী।

আওয়ামী লীগ প্রার্থী হোসনে আরা লুত্ফা ডালিয়া ভোট চলাকালীন সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ভোটগ্রহণ সুষ্ঠু হচ্ছে।

আঙুলের ছাপ না মেলায় বিড়ম্বনা : আঙুলের ছাপ না মেলায় ভোট দিতে গিয়ে বিড়ম্বনায় পড়েছেন অনেক ভোটার। বিশেষ করে, বয়স্ক ভোটারদের ক্ষেত্রে এ জটিলতা বেশি দেখা গেছে।

সকাল সাড়ে ৯টায় ২০ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তর মুলাটোল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভোটকেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। পুরুষ ভোটারদের তুলনায় নারী ভোটার ছিল বেশি। সকাল ১০টা নাগাদ এই কেন্দ্রে ১৭৪ জন ভোটার নিজেদের ভোট প্রদান করেন, কেন্দ্রের মোট ভোটার এক হাজার ৯১৯ জন। উত্তর মুলাটোল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোটার ৫৮ বছর বয়সী তাপসী রানী দাস কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আঙুলের ছাপ মিলছিল না। তিনবার চেষ্টা করে ভোট দিয়েছি। ’

মুলাটোল বালিকা বিদ্যালয়ের প্রিজাইডিং অফিসার শাহরিয়ার আরেফিন কালের কণ্ঠকে বলেন, বয়স্ক ভোটারদের আঙুলের ছাপ মিলতে অসুবিধা হচ্ছে। এ ছাড়া ইভিএম মেশিনে কোনো ত্রুটি দেখা যায়নি। সাড়ে ১০টা নাগাদ ১০ শতাংশ ভোট পড়েছে, মোট ভোটার দুই হাজার ১৩৪ জন।

আঙুলের ছাপের জটিলতায় ভোটারদের দীর্ঘ লাইন চোখে পড়েছে রংপুর সিটির প্রান্তীয় ভোট কেন্দ্রগুলোতে। ২ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র এবং ১ নম্বর ওয়ার্ডের রণচণ্ডী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ছিল ভোটারদের বিপুল উপস্থিতি। ভোট প্রদানে দীর্ঘ সময় লেগে যাওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা যায় তাঁদের।

রণচণ্ডী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার খোরশেদ আলম বলেন, ইভিএম ভোটারদের কাছে নতুন। কেউ কেউ এসে ব্যালট পেপারও খুঁজছিলেন। ইভিএমে ভোট দেওয়ার বিষয়টি বুঝিয়ে দিতে হচ্ছে। ফলে ভোটগ্রহণে একটু বেশি সময় লাগছে।

উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট : সিইসি

নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল গতকাল আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সিসি ক্যামেরায় ভোট পর্যবেক্ষণ করেন। বিকেল ৫টার দিকে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ধীরগতি, এ ছাড়া ভোটার উপস্থিতিও বেশি। এ কারণে ভোটগ্রহণ শেষ হতে রাত ৮টা বাজতে পারে। এর আগে দুপুরের দিকে ভোট চলাকালে সিইসি নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের বলেন, ‘রংপুরে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ হচ্ছে। ভোটারদের উপস্থিতি আমাদের মতে সন্তোষজনক। সিসিটিভির মাধ্যমে আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। ’

বিজিবির ট্রাকে আগুন

নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ৪ নম্বর ওয়ার্ডের পরাজিত কাউন্সিলর প্রার্থীর কর্মী ও সমর্থকরা বিজিবি পিকআপে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করেন। রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপপুলিশ কমিশনার আবু মারুফ হোসেন জানান, দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের সময় গতকাল সন্ধ্যায় বিজিবির রিকুইজিশন করা একটি পিকআপে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় তাত্ক্ষণিক অতিরিক্ত পুলিশ পাঠিয়ে দেওয়া হয়। পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দোষীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

সর্বশেষ - রাজনীতি