ঢাকা, আজ রোববার, ২৫ আগস্ট ২০১৯

গণপিটুনিতে বিএনপি-জামায়াত জড়িত বলে সন্দেহ বিশ্লেষকদের

প্রকাশ: ২০১৯-০৭-২৩ ১১:১৭:১৬ || আপডেট: ২০১৯-০৭-২৩ ১১:১৭:১৬

পদ্মা সেতুতে মাথা লাগবে দেশে এ ধরনের একটি গুজব চলছে। আর এই গুজবের কারণে দেশের বিভিন্ন জায়গায় গণপিটুনিতে হতাহতের ঘটনা ঘটছে। প্রতিদিনই কোনো স্থানে পিটিয়ে মানুষ হত্যা করা হচ্ছে। এ নিয়ে গোটা দেশে চলছে উদ্বেগ। গণপিটুনি দিয়ে নিরাপরাধ মানুষ হত্যায় বিএনপি-জামায়াতের যোগসাজশ রয়েছে বলে সন্দেহ করছেন বিশ্লেষকরা।

এ বিষয়ে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, গণপিটুনি, ধর্ষণ, বিল্ডিংয়ে আগুন লাগার ঘটনা নিছক দুর্ঘটনা নয়। এক স্থানে এসব হলে ১০ স্থানে হয়। এসব বিএনপি-জামায়াতের নিখুঁত কাজের উদাহরণ। ২২ জুলাই দুপুরে নেত্রকোণা জেলা আইনজীবী সমিতির নবনির্মিত ভবন উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুষদের অধ্যাপক গিলানী নেওয়াজ বলেন, আইন তার নিজস্ব গতিতে চলবে। কোথাও কোনো অপরাধ সংগঠিত হলে অপরাধীকে পুলিশে দিতে হবে। তবে আইন নিজের হাতে তুলে নেওয়া যাবে না। তবে রাজনৈতিকভাবে ফায়দা নিতে বিএনপি-জামায়াত দেশে অরাজক পরিস্থিতি তৈরি করতে এর নেপথ্যে কাজ করতে পারে বলে সন্দেহ প্রকাশ করেন ঢাবির এ অধ্যাপক।

এদিকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক জারিফ হাসান বলেন, এক যুগ ধরে ক্ষমতার বাইরে মাঠের বিরোধী দল বিএনপি। সরকারের জনপ্রিয়তার ভাটা নামাতে কয়েকদিন পর পর নতুন ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয় বিএনপি জোট। অতীতেও ধর্ষণসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে আগুন লাগানোর সঙ্গে বিএনপি-জামাতের নেতাদের সম্পৃক্ততার প্রমাণ পেয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির এক নেতা বলেন, সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে নতুন করে পরিকল্পনার ছক দিয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। তিনি লন্ডন থেকে স্থায়ী কমিটি সদস্যদের কাছে দুইটি মাস্টার প্ল্যান দিয়েছেন। এর একটি হচ্ছে আট বিভাগের জনসমাবেশ করা তবে দ্বিতীয়টি, গণপিটুনি বা পদ্মাসেতু নিয়ে কিনা তা না বলে এড়িয়ে যান তিনি।

জানা গেছে, খালেদা জিয়ার মুক্তিতে আইনিভাবে কিছু না করতে পেরে বেআইনি কাজের ছক আকছেন তারেক জিয়া। লন্ডন থেকে তারেকের নির্দেশেই বিএনপি-জামায়াতের একটি মহল গণপিটুনিতে জড়িত হয়ে দেশকে উত্তপ্ত করার অপচেষ্টা করছে।